Home / সাহিত্য ও ইতিহাস / অশ্রু ঝরা দিন – মোঃ ফজলুল করিম।

অশ্রু ঝরা দিন – মোঃ ফজলুল করিম।

বলছি ২০১৮ সালের আগস্ট মাসের ১৭ তারিখের কথা। সে দিন ছিল শুক্রবার সকাল থেকে যথারীতি দিনটি ভালো ভাবেই শুরু হলো আন্দোলনের কাজ দিয়ে। সকাল ৭.৩০ মিঃ সদস্য কুরআন স্টাডি ক্লাস শুরু হয়।সব সময়ের মতো মরহুম ইব্রাহীম ভাই সকল সদস্য ভাইদের দাওয়াত দেয়ার পাশাপাশি বৈঠকে আসা নিশ্চিত করে দারস তৈরি করলেন।কুরআন ক্লাসেও ব্যাপক অংশগ্রহন করলেন এবং সব সময়ের মতো তৎকালীন জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মাও মফিজুল ইসলাম ভাই তাকেই বলার বেশী সুযোগ করে দিলেন। বলে রাখা দরকার সেই মফিজুল ইসলাম ভাইও আমাদের মাঝে নেই। ব্যাপক আলোচনা পর কুরআন ক্লাস শেষ হলো। মফিজুল ইসলাম ভাইকে বিদায় জানানোর পর ইব্রাহীম ভাই বললেন ভাই আমি চলে যাচ্ছি জু’মআ পড়াতে হবে। আজ আর আসবো না কালকে বিকালে আসবো বাড়ীতে একটু কাজ আছে। আমি বললাম ঠিক আছে যান।এটাই আমার সাথে শেষ কথা।



সকল সদস্য ভাইকে বিদায় দিয়ে আমি একাডেমী থেকে বাসায় আসে মাত্র বসলাম এমন সময় একটি অপরিচয় নাম্বার থেকে কল দিয়ে বললো ভাই ইব্রাহীম ভাই মটর সাইকেল এক্সসিডেন্ট করছে। আমি বললাম কোথায় সে বললো ভাইয়ের মসজিদের পাশে তারপর আমি বললাম তা হলে হায়দরগঞ্জ বাজারে নিয়ে যান ডাক্তার দেখান।

এরপর আরেকটি নাম্বার থেকে কল আসলো বললো ভাই ডাক্তার বলছে রায়পুর নিয়ে যাওয়ার জন্য আমি বললাম কেন? কি হয়েছে? কোন রক্ত বের হচ্ছে কি না? হাত অথবা পায়ে কোন সমস্যা হয়েছে? সে বললো না আমি বললাম তা হলে কি সমস্যা? আচ্ছা ঠিক আছে দূত রায়পুর মাতৃছায়া হাসপাতালে নিয়ে আসেন আমি হাসপাতালে কথা বলতেছি।এরপর রায়পুরের দায়িত্বশীল ভাইদের মাতৃছায়া হাসপাতালে আসার জন্য বললে তারা পূর্বেই হাসপাতালে এসে উপস্থিত হয়।

কিছুক্ষণের মধ্যে ইব্রাহীম ভাইকে নিয়ে সি এন জি হাসপাতালে এসে পৌছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দূত সময়ে পালস ও বুক এক্সরে করেই আমাকে কল দিয়ে বলে ফজলুল ভাই ইব্রাহীম ভাই নেই।

আমি সাথে সাথে রেগে গিয়ে বলি কি বলেন আপনাদের ডাক্তার ভালো না আপনি দূত লক্ষ্মীপুর পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

এর কিছু পরেই তৎকালীন জেলা মাদ্রাসা সম্পাদক মোবারক হোসেন ভাই কল দিয়ে কান্নার জন্য কথা বলতে পারতেছে না শুধু এতোটুকু শুনতেছি ফজলুল ভাই , ফজলুল ভাই ইব্রাহীম ভাই আর আমাদের মাঝে নেই। আমি শুধু বললাম দূত লক্ষ্মীপুর নিয়ে আসেন।

ইতিমধ্যে লক্ষ্মীপুর জেলা সকল দায়িত্বশীলদের মাঝে এ সংবাদ পৌছলে সবাই দূত লক্ষ্মীপুর নিউ আধুনিক হাসপাতালে আসতে থাকে।

এরই মধ্যে ইব্রাহীম ভাইকে বহন করা এম্বুলেন্স হাসপাতালের সামনে এসে পৌছল। সবার বুক ফাটা কান্নার মধ্যদিয়ে ইব্রাহীম ভাইকে ই সি জি করানো হলো। রিপোর্ট দেখে ডাক্তার বললো ইব্রাহীম আর নেই।

ইব্রাহীম ভাইয়ের অন্যতম অভিবাবক আওলাদে রাসূল সাইয়্যেদ তাহের ইজ্জুদ্দীন তাহের জাবেরীর কান্না।ইব্রাহীম ভাইয়ের একমাত্র ছোট ভাইয়ের কান্না দেখে হাসপাতালে অবস্থানরত সকল নেতৃবৃন্দ কেঁদেছে।

হাসপাতালের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে তার বাবা, মা, আর বোনদের কাছে ইব্রাহীম ভাইয়ের কফিন নিয়ে যাওয়ার জন্য দায়িত্বশীল ভাইয়েরা কফিন নিয়ে রওয়ানা দিলেন রায়পুর উপজেলার হায়দরগঞ্জ ওনার নিজ বাড়ীতে।



বাড়ীতে পৌছার পর দেখতে পাই এ যেন আকাশ প্রকম্পিত কান্না তার বাবা,মা, ভাই, বোনরা অঙ্গান। কোন ভাষা ছিল না তাদের সান্তনা দেয়ার।

চারদিক থেকে আত্বীয় স্বজন, বন্ধু,শহীদি কাফেলার কর্মীরা আসতে থাকে, সবার সাথে পরামর্শ করে রাত ৮.০০ টায় জানাজার সময় ঠিক করা হয়।

জানাজার ঠিক পূর্বমুহূর্তে আলেম ওলামা, আওলাদে রাসূল ও নেতৃবৃন্দ আলোচনার পর তার ভাইয়ের আলোচনার সময় সকলে কান্না যেন আজও কানে,,,,,,,,

জানাজা শেষে প্রিয় ভাইয়ের দাফন সম্পন্ন করার মধ্য দিয়ে প্রিয় ভাইকে চির দিনের জন্য বিদায় দিলাম।

প্রিয় ভাই বিদায় হয়তো সেদিনেই দিয়েছি হয়তো দুনিয়ার জীবনে আর দেখা হবে না,আর আপনার কন্ঠে কুরআন তেলাওয়াত শুনবো না,আর হয়তো রাজপথে থাকবেন না, রুমে এসে হয়তো আর বলবেন না ভাই কিছু পরামর্শ ছিল।

কিন্তু আপনি থাকবেন আমাদের অন্তরে সব সময় অনুপ্রেরণা হয়ে।

আমরা বিশ্বাস করি দুনিয়ার জীবনে যেমনি আপনি ছিলেন সম্মানিত, মর্যাদাবান পরকালরও আল্লাহ আপনাকে সম্মানিত ও মর্যাদাবান করবেন।

মহান আল্লাহ তা’য়ালার কাছে পার্থনা আপনি অবশ্যই আপনার ওয়াদার আলোকে আমাদের প্রিয় ইব্রাহীম ভাইয়ের সাথে মেহমানদারি করবেন।

. নিশ্চয়ই যারা ঈমান এনেছে এবং নেক আমল করেছে তাদের মেহমানদারির জন্য ফিরদাউস নামক বেহেশত রয়েছে, যেখানে তারা চিরদিন থাকবে এবং সেখান থেকে অন্য কোথাও তারা যেতে চাইবে না। (সূরা কাহফ-১৮:১০৭, ১০৮)

. যারা ঈমান এনেছে ও নেক আমল করেছে, নিশ্চয়ই তাদের জন্য রয়েছে বেহেশতের বাগান, যার নিচে ঝরনাধারা প্রবাহিত হতে থাকবে-এটা বিরাট সফলতা।(সূরা বুরুজ-৮৫:১১)
এমনটাই যেন হয়, আমীন।

Check Also

Workout Routines & Training Plans

Fitify- Workout Routines & Training Plans app Free Download 2020

Fitify- Workout Routines & Training Plans app Free Download 2020   Fitify is your ultimate …

লক্ষীপুরে এক শিশু প্রাচারকারী জনতার হাতে আটক।

লক্ষীপুরের বাসুবাজারের সমিতির হাটে ৮জুলাই ২০১৯ ইং তারিখে রাত ১০ টার দিকে এই মহিলাকে দেখা …

প্রতিনিধির ছোট ভূলের জন্য দুঃখ প্রকাশ করলেন আমার নিউজ ৭১ এর এডমিন।

১৬ জুন ২০১৯ ইং তারিখে, আমাদের এক প্রতিনিধি নিউজ করার সময়ে ফেমাস হাসপাতালের নামের যায়গায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *